লাল চিনি ও সাদা চিনির যথাক্রমে উপকারিতা ও অপকারীতা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাই - ScienceBee প্রশ্নোত্তর

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রশ্নোত্তর দুনিয়ায় আপনাকে স্বাগতম! প্রশ্ন-উত্তর দিয়ে জিতে নিন পুরস্কার, বিস্তারিত এখানে দেখুন।

+5 টি ভোট
1,073 বার দেখা হয়েছে
"বিবিধ" বিভাগে করেছেন (47,700 পয়েন্ট)

2 উত্তর

+3 টি ভোট
করেছেন (71,000 পয়েন্ট)

স্বাস্থ্য-বিশেষজ্ঞরা চিনি খাওয়ার ব্যাপারে সতর্ক করে যাচ্ছেন নিয়মিতভাবে। তাদের মতামত হলো, ধীরে ধীরে খাবারে চিনি ব্যবহার কমাতে হবে।

প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় যে শর্করা জাতীয় খাবার থাকে, তাতে যে পরিমাণ চিনি থাকে, তা আমাদের দেহে গ্লুকোজে রূপান্তরিত হয়। পরে দেহে তা শক্তি উৎপাদন করে। প্রয়োজনের তুলনায় বেশি চিনি গ্রহণ করলে দেহের জন্য তা ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

সেক্ষেত্রে ঝকঝকে, ঝরঝরে মিহি দানার চিনির বদলে মোটা দানার বাদামী চিনি গ্রহণ করাই ভালো বলে মত দিয়েছেন স্বাস্থ্য-বিশেষজ্ঞরা। ঝরঝরে মিহি দানার এই চিনি আকর্ষণীয় প্যাকেটে বাজারজাত করার কারণে ক্রেতাদের বেশি টানে।

অন্যদিকে দেশে তৈরি আখের চিনি স্বাস্থ্যকর হলেও এটি দেখতে লালচে, এর আর্দ্রতা বেশি। অনেক সময় ক্রেতারা এই চিনি কিনতে আগ্রহ দেখান না। কিন্তু দেশীয় চিনিকলে উৎপাদিত চিনি তুলনামূলকভাবে নিরাপদ এবং শিশু খাদ্য হিসেবে উপযোগী।

শিল্প-কারখানা রিফাইনিং (পরিশোধিত) পদ্ধতিতে চিনি তৈরির সময় ভিটামিন, মিনারেল, প্রোটিন, এনজাইম এবং অন্যান্য উপকারি পুষ্টি উপাদান দূর হয়ে যায়। এই চিনি মানবদেহের জন্য খুবই ক্ষতিকর। বিদেশ থেকে আমদানীকৃত চিনি তৈরিতে সবসময় আখ ব্যবহার করা হয় না। আখের বিকল্প উপাদান দিয়েও চিনি তৈরি হয়। এই চিনিতে মিষ্টতা আনতে বাড়তি রাসায়নিক মিশ্রিত করা হয়। আর পরিশোধন প্রক্রিয়ায় চিনিতে যুক্ত হয় আরও ক্ষতিকর নানা উপাদান। পরিষ্কার বা সাদা করার জন্য ব্যবহার করা হয় ক্ষতিকর রাসায়নিক উপাদান সালফার, হাড়ের গুঁড়ো।

বাংলাদেশ খাদ্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ইনস্টিটিউটের পরীক্ষায় দেখা গেছে, আমদানিকৃত পরিশোধিত এবং দেশে উৎপাদিত পরিশোধিত চিনি স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

আখ থেকে উৎপাদিত দেশি চিনিতে ক্যালসিয়ামের মাত্রা ১৬০ দশমিক ৩২, যা পরিশোধিত চিনিতে ১ দশমিক ৫৬ থেকে ২ দশমিক ৬৫ ভাগ। পটাশিয়াম দেশি চিনিতে ১৪২ দশমিক ৯ ভাগ, পরিশোধিত চিনিতে শূন্য দশমিক ৩২ থেকে শূন্য দশমিক ৩৫ ভাগ। ফসফরাস দেশি চিনিতে ২ দশমিক ৫ থেকে ১০ দশমিক ৭৯ ভাগ আর পরিশোধিত চিনিতে ২ দশমিক ৩৫ ভাগ।

আয়রন দেশি চিনিতে শূন্য দশমিক ৪২ থেকে ৬ ভাগ আর পরিশোধিত চিনিতে শূন্য দশমিক ৪৭ ভাগ। ম্যাগনেশিয়াম দেশি চিনিতে শূন্য দশমিক ১৫ থেকে ৩ দশমিক ৮৬ ভাগ আর পরিশোধিত চিনিতে শূন্য দশমিক ৬৬ থেকে ১ দশমিক ২১ ভাগ। সোডিয়াম দেশি চিনিতে শূন্য দশমিক ৬ ভাগ, আর পরিশোধিত চিনিতে শূন্য দশমিক ২ ভাগ।

এসব কারণে বিশেষজ্ঞরা এখন দেশে উৎপাদিত লালচে চিনি খাবার পরামর্শ দিচ্ছেন।

বাংলাদেশ চিনি ও খাদ্যশিল্প কর্পোরেশন প্যাকেটজাত করে বিক্রি করতেও শুরু করেছে এই চিনি। ক্রেতারা পুরনো দিনের মতো আবার লালচে চিনির অভ্যাস গড়ে তুলছেন।

courtesy: সাদা চিনি নয়, অভ্যাস করুন লাল চিনিতে

0 টি ভোট
করেছেন (5,600 পয়েন্ট)

সাদা চিনির অপকারিতা

সাদা চিনি হলো সুক্রোজের একটি রূপ যা আখ বা বেত থেকে তৈরি করা হয়। এটি একটি সরল কার্বোহাইড্রেট যা শরীরে খুব দ্রুত শোষিত হয়। সাদা চিনির অপকারিতাগুলো হলো:

  • ওজন বৃদ্ধি: সাদা চিনিতে প্রচুর পরিমাণে ক্যালোরি থাকে। তাই অতিরিক্ত সাদা চিনি গ্রহণ করলে ওজন বৃদ্ধি পায়।
  • দাঁতের ক্ষয়: সাদা চিনি দাঁতের এনামেলকে ক্ষয় করে। ফলে দাঁতের ক্ষয় হতে পারে।
  • ডায়াবেটিস: অতিরিক্ত সাদা চিনি গ্রহণ করলে রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। ফলে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বেড়ে যায়।
  • হৃদরোগ: অতিরিক্ত সাদা চিনি গ্রহণ করলে কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। ফলে হৃদরোগ, স্ট্রোক, এবং অন্যান্য হৃদরোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়।
  • ফ্যাটি লিভার: অতিরিক্ত সাদা চিনি গ্রহণ করলে লিভারে চর্বি জমা হয়। ফলে ফ্যাটি লিভারের ঝুঁকি বেড়ে যায়।
  • ক্যান্সার: কিছু গবেষণায় দেখা গেছে যে, অতিরিক্ত সাদা চিনি গ্রহণ করলে ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে।

লাল চিনির উপকারিতা

লাল চিনি হলো আখ বা বেত থেকে তৈরি করা একটি চিনি যা পরিশোধন করা হয় না। এতে সাদা চিনির তুলনায় কিছুটা ভিটামিন এবং খনিজ পদার্থ থাকে। লাল চিনির উপকারিতাগুলো হলো:

  • ওজন বৃদ্ধিতে কম ক্ষতিকর: লাল চিনিতে সাদা চিনির তুলনায় কম ক্যালোরি থাকে। তাই অতিরিক্ত লাল চিনি গ্রহণ করলেও ওজন বৃদ্ধি কম হতে পারে।
  • দাঁতের ক্ষয়ে কম ক্ষতিকর: লাল চিনিতে সাদা চিনির তুলনায় কিছু অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে। এগুলো দাঁতের ক্ষয় থেকে রক্ষা করতে পারে।
  • ডায়াবেটিসে কম ক্ষতিকর: লাল চিনিতে সাদা চিনির তুলনায় কম গ্লাইসেমিক ইনডেক্স থাকে। তাই ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য লাল চিনি সাদা চিনির তুলনায় কিছুটা কম ক্ষতিকর।

তবে, লাল চিনিও পরিমিত পরিমাণে খাওয়া উচিত। অতিরিক্ত লাল চিনি গ্রহণ করলেও ওজন বৃদ্ধি, দাঁতের ক্ষয়, ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, ফ্যাটি লিভার, এবং ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে।

উপসংহার

সাদা চিনি এবং লাল চিনি উভয়ই স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। তাই, অতিরিক্ত চিনি গ্রহণ করা থেকে বিরত থাকা উচিত।

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

+7 টি ভোট
2 টি উত্তর 906 বার দেখা হয়েছে
0 টি ভোট
2 টি উত্তর 117 বার দেখা হয়েছে
+12 টি ভোট
2 টি উত্তর 1,142 বার দেখা হয়েছে
+2 টি ভোট
1 উত্তর 3,340 বার দেখা হয়েছে
+7 টি ভোট
3 টি উত্তর 13,174 বার দেখা হয়েছে

10,744 টি প্রশ্ন

18,397 টি উত্তর

4,731 টি মন্তব্য

243,977 জন সদস্য

19 জন অনলাইনে রয়েছে
0 জন সদস্য এবং 19 জন গেস্ট অনলাইনে
  1. MIS

    990 পয়েন্ট

  2. shuvosheikh

    320 পয়েন্ট

  3. তানভীর রহমান ইমন

    160 পয়েন্ট

  4. unfortunately

    120 পয়েন্ট

  5. Muhammad_Alif

    120 পয়েন্ট

বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় উন্মুক্ত বিজ্ঞান প্রশ্নোত্তর সাইট সায়েন্স বী QnA তে আপনাকে স্বাগতম। এখানে যে কেউ প্রশ্ন, উত্তর দিতে পারে। উত্তর গ্রহণের ক্ষেত্রে অবশ্যই একাধিক সোর্স যাচাই করে নিবেন। অনেকগুলো, প্রায় ২০০+ এর উপর অনুত্তরিত প্রশ্ন থাকায় নতুন প্রশ্ন না করার এবং অনুত্তরিত প্রশ্ন গুলোর উত্তর দেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রতিটি উত্তরের জন্য ৪০ পয়েন্ট, যে সবচেয়ে বেশি উত্তর দিবে সে ২০০ পয়েন্ট বোনাস পাবে।


Science-bee-qna

সর্বাপেক্ষা জনপ্রিয় ট্যাগসমূহ

মানুষ পানি ঘুম পদার্থ - জীববিজ্ঞান এইচএসসি-উদ্ভিদবিজ্ঞান এইচএসসি-প্রাণীবিজ্ঞান পৃথিবী চোখ রোগ রাসায়নিক শরীর রক্ত আলো #ask মোবাইল ক্ষতি চুল কী চিকিৎসা পদার্থবিজ্ঞান সূর্য প্রযুক্তি #science স্বাস্থ্য প্রাণী বৈজ্ঞানিক মাথা গণিত মহাকাশ পার্থক্য এইচএসসি-আইসিটি #biology বিজ্ঞান খাওয়া গরম শীতকাল #জানতে কেন ডিম চাঁদ বৃষ্টি কারণ কাজ বিদ্যুৎ রাত রং উপকারিতা শক্তি লাল আগুন সাপ মনোবিজ্ঞান গাছ খাবার সাদা আবিষ্কার দুধ উপায় হাত মশা মাছ ঠাণ্ডা মস্তিষ্ক শব্দ ব্যাথা ভয় বাতাস স্বপ্ন তাপমাত্রা গ্রহ রসায়ন উদ্ভিদ কালো পা কি বিস্তারিত রঙ মন পাখি গ্যাস সমস্যা মেয়ে বৈশিষ্ট্য হলুদ বাচ্চা সময় ব্যথা মৃত্যু চার্জ অক্সিজেন ভাইরাস আকাশ গতি দাঁত আম হরমোন বিড়াল কান্না
...